রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৯:২১ অপরাহ্ন
নোটিশঃ
দেশব্যাপি জেলা ও উপজেলা প্রতিনিধি আবশ্যক। নুন্যতম শিক্ষাগত যোগ্যতা এইচ এস সি/ সমমান পাস। যোগাযোগঃ 01715247336

নোয়াখালীর কবিরহাট উপজেলায় পারিবারিক কলহের জেরে এক ‍যুবকের আত্মহত্যা

মোঃ সাদ্দাম হোসেন সাহিদ স্টাফ রিপোর্টার, নোয়াখালী। / ২০৭
নিউজ আপঃ মঙ্গলবার, ২৮ মার্চ, ২০২৩, ৪:৩৪ অপরাহ্ন

আজ ২৮শে মার্চ ভোর অনুমান ০৩.৩০ ঘটিকার সময় নোয়াখালী কবিরহাট উপজেলার ২নং সুন্দলপুর ইউনিয়ন সুন্দলপুর গ্রামের জনৈক মোঃ মহি উদ্দিন প্রঃ খোকনের ছেলে ভিকটিম তাওহিদ (২০) তার নিজ ঘরের তীরের সাথে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে।

আজ ভোর রাত অনুমান ০৩.৩০ ঘটিকার সময় ভিকটিমের মা রেহানা আক্তার রোজা রাখার উদ্দেশ্যে সেহরী খাওয়া জন্য ভিকটিমকে ডাকাডাকি করে। কিন্তু ভিকটিম মায়ের ডাকে সাড়া শব্দ না দিলে মা জোরে ঘরের দরজা ধাক্কা দিলে দরজা খুলে যায়। তারপর ভিকটিমের মা রেহানা বেগম দরজা খুলে দেখে তার ছেলে ভিকটিম তাওহিদ ঘরের চালের তীরের সাথে গামছা দিয়া গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় ঝুলে আছে। রেহানা বেগম চিৎকার দিলে পরিবারের অন্যান্য লোকজন এসে ঘটনা দেখতে পায়। পরবর্তীতে স্থানীয় লোকজন কবিরহাট থানা পুলিশকে সংবাদ দিলে পুলিশ তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে এসে লাশ শনাক্ত করে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট প্রস্তুত করে লাশ হেফাজতে নেয় এবং লাশের ময়না-তদন্তের জন্য নোয়াখালী সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।

স্থানীয়ভাবে জানা যায়, বিগত ৮-৯ মাস পূর্বে নোয়াখালী জেলার কবিরহাট উপজেলার পশুরামপুর গ্রামের জনৈক মৃত বাচ্চু মিয়ার মেয়ে মমতাজ বেগমকে প্রেমের সম্পর্কে গড়ে বিবাহ করে। কিন্তু বিবাহের পর থেকে ভিকটিমের পরিবারের সাথে ভিকটিমের স্ত্রী মমতাজের পারিবারিক কলহ সৃষ্টি হয়। অতঃপর ভিকটিমের স্ত্রী তাহার পিতার বাড়ীতে চলে গেলে ভিকটিম তাওহিদ রাগ অভিমানে তাহার নিজ ঘরে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

বিষয়টি নিয়ে কবিরহাট থানার অফিসার ইনচার্জ রফিকুল ইসলামের সহিত আলোচনাকালে তিনি আমাদেরকে জানান, সংবাদ পেয়ে পুলিশ তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে গিয়ে ভিকটিমের মৃতদেহ শনাক্ত করে এবং মৃতদেহের সুরতহাল রিপোর্ট প্রস্তুত করে লাশ ময়না-তদন্তের জ্ন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।


এই বিভাগের আরও খবর....
এক ক্লিকে বিভাগের খবর