মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ০৯:২৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
শিরোনামঃ
রাজশাহীতে জঙ্গি হামলার আশঙ্কা নেই পুজামন্ডপে – রিয়াজ শাহরিয়ার জয়পুরহাটের কালাইয়ে  টেকসইকরণের প্রকল্পে রাস্তার কাজ হচ্ছে নিম্নমানের ইট দিয়ে বাঘায় ১২১ পিস ইয়াবাসহ একজন আটক রাজবাড়ীতে পৌরসভার কাউন্সিলর অস্ত্র ও গুলিসহ আটক বাংলাদেশ রেলওয়েতে অপ্রাপ্তবয়স্ক শিশু স্টাফ নিয়োগ স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর গলাকেটে হত্যা: প্রাইভেট শিক্ষকের তিনদিনের রিমান্ড টঙ্গীতে মালবাহী ট্রেনের বগি লাইনচ্যুত পাংশায় পুলিশের অভিযানে আগ্নেয়াস্ত্র সহ আটক ৪ যুবক রাজবাড়ী জেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রতীক বরাদ্দ, আ’লীগের প্রার্থী পেলেন তালগাছ সোনাইমুড়ী থানা পুলিশ কর্তৃক অভিযান পরিচালনা করে ৯০ বোতল ফেন্সিডিল সহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক
নোটিশঃ
দেশব্যাপি জেলা ও উপজেলা প্রতিনিধি আবশ্যক। নুন্যতম শিক্ষাগত যোগ্যতা এইচ এস সি/ সমমান পাস। যোগাযোগঃ 01715247336

বেহাল দশা স্বাস্থ্যসেবা

প্রতিবেদকের নাম / ৩৫৯ বার দেখা হয়েছে
নিউজ আপঃ রবিবার, ২৫ নভেম্বর, ২০১৮, ৬:০১ পূর্বাহ্ন

স্বাস্থ্যসেবা যখন একটি লাভজনক বাণিজ্য হিসেবে প্রতিষ্ঠা পেয়েছে তখন সরকারি পর্যায়ে এর মান দিন দিন নিচের দিকে নামছে। সরকারের পক্ষ থেকে চেষ্টার অন্ত নেই। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে স্বাস্থ্যকেন্দ্র গড়ে তোলা হয়েছে। নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে চিকিৎসক। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে আধুনিক সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হলেও শুধু মানসিকতার অভাবে অনেক স্থানে কাক্সিক্ষত সেবা পাচ্ছে না মানুষ। ফলে তাদের যেতে হচ্ছে কোনো না কোনো বেসরকারি হাসপাতাল বা ক্লিনিকে, যেখানে চিকিৎসক হিসেবে কাজ করছেন সরকারি চিকিৎসকরাই। বৃহস্পতিবার তেমনই কিছু খবর প্রকাশিত হয়েছে।

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১২ বছর আগে আনা এক্স-রে মেশিনটি এখন পর্যন্ত চালু করা হয়নি। ফলে সেবা পাচ্ছে না এলাকাবাসী। পাবনার চাটমোহর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসক মাত্র দুজন। অথচ সেখানে প্রতিদিন ২০০ থেকে ২৫০ জন রোগী চিকিৎসা নিতে আসে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নতুন ভবনে অপারেশন থিয়েটার থাকলেও সেখানে কোনো কাজ হয় না। সার্জারি মেশিনগুলো নষ্ট হয়ে গেছে। এক্স-রে মেশিনও অকেজো। একই অবস্থা ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের। সেখানেও নষ্ট হচ্ছে কোটি টাকার সরঞ্জাম। চিকিৎসক না থাকায় সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে চিকিৎসা দেন একজন ব্রাদার। বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলা সদরে সাড়ে তিন কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত ২০ শয্যার অত্যাধুনিক হাসপাতাল এখনো চালু হয়নি। চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদার ৩১ শয্যাবিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি ৫০ শয্যায় উন্নীত হলেও তিন বছরে চিকিৎসা কার্যক্রম শুরু হয়নি। দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ রয়েছে এ হাসপাতালের অ্যাম্বুল্যান্স ও এক্স-রে সেবা। দীর্ঘদিন শূন্য রয়েছে পাঁচ চিকিৎসকের পদ। ফলে বেসরকারি হাসপাতালে যেতে হচ্ছে রোগীদের।

একের পর এক গড়ে উঠছে অবৈধ হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার। এসব জায়গায় চিকিৎসা নিতে গিয়ে প্রতারণার শিকার হচ্ছে সহজ-সরল মানুষ। শুধু ভোলাতেই লাইসেন্সবিহীন ১৭ ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার গড়ে উঠেছে। এসব ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে কাজ করছে অদক্ষ কর্মীরা। নেই প্রশিক্ষিত ও পূর্ণকালীন কোনো চিকিৎসক কিংবা নার্স।

গ্রামাঞ্চলে স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে হলে সেখানে আধুনিক হাসপাতাল যেমন প্রয়োজন, তেমনি মানসম্পন্ন চিকিৎসকও দিতে হবে। আমাদের দেশের চিকিৎসকদের শুরু থেকেই রাজধানী বা শহরে থাকার প্রবণতা রয়েছে।

এ অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসতে না পারলে নতুন নতুন মেডিক্যাল কলেজ করে কোনো লাভ হবে না। চিকিৎসকদের সেবার মানসিকতা নিয়ে গ্রামাঞ্চলে কাজ করতে হবে। তদারকির মাধ্যমে গ্রামাঞ্চলে স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার দায়িত্ব সরকারকে নিতে হবে।


এই বিভাগের আরও খবর....
এক ক্লিকে বিভাগের খবর