শুক্রবার, ২৫ নভেম্বর ২০২২, ১২:৫৪ পূর্বাহ্ন
নোটিশঃ
দেশব্যাপি জেলা ও উপজেলা প্রতিনিধি আবশ্যক। নুন্যতম শিক্ষাগত যোগ্যতা এইচ এস সি/ সমমান পাস। যোগাযোগঃ 01715247336

প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানালো রং বেরংয়ের সুসজ্জিত ২২০ টি পাল তোলা নৌকা

মো.ফরিদ উদ্দিন বিপু,কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি, / ১৪৭ বার দেখা হয়েছে
নিউজ আপঃ সোমবার, ২১ মার্চ, ২০২২, ১:৪১ অপরাহ্ন

পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার রাবনাবাদ নদীতে রেং বেরংয়ের ২২০ টি নৌকা স্বাগত জানিয়েছে প্রধানমন্ত্রীকে। সোমবার বেলা ১০.৪২ মিনিটে দেশের বৃহত পায়রা ১৩২০ মেগাওয়াট তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র উদ্বোধনে বিদ্যুৎ কেন্দ্র এলাকায় পৌছান প্রধানমন্ত্রী। পরে ১১.১৫ মিনিটে পায়রা তাপ বিদ্যুত কেন্দ্রের জেটি সংলগ্ন রাবনাবাদ নদীতে শুরু হয় নৌকা মনোমুগ্ধকর প্রদর্শনীর মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান এই অঞ্চলের জেলেরা। এর মধ্যে ১০০টি পালতোলা নৌকা, ১০০ নৌকায় ছিল প্রধানমন্ত্রীর ছবি সংবলিত ব্যানার-ফেস্টুন। প্রতিটি নৌকায় রঙ-বেরঙের পোশাকে দু’জন করে ৪০০ জেলে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান। বাকি ২০নৌকায় ছিলেন নিরাপত্তাকর্মীরা। বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা এবং রঙ-বেরঙের কাপড় ও কাগজ দিয়ে সাজানো হয় এসব নৌকা। সঙ্গে বাজানো হয় ‘ও মাঝি পাল উড়াইয়া দে নাও ছাড়িয়া দে গানের যন্ত্রসংগীত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজে সেই প্রদর্শনীর দৃশ্য মোবাইল ফোনে ধারণ করেন। জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে এসব নৌকা তৈরি করা হয়েছে। উপজেলার মহিপুর ইউনিয়নের নজীবপুর গ্রামের আন্ধারমানিক নদীর তীরে নৌকাগুলো তৈরি করেছেন বরিশাল চারুকলা বিদ্যালয়ের ১০ জন শিল্পী। চার দিনে ২৫ সহকারীর প্রচেষ্টায় নৌকাগুলো সাজসজ্জার কাজ শেষ করেছেন ১০ শিল্পী। লাল-সবুজ, নীল এবং হলুদ রঙে নৌকাগুলো সজ্জিত করা হয়েছে।

এরপর সকাল ১১টা ৪৬ মিনিটে বিদ্যুৎকেন্দ্রটির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেন তিনি। এরপর ১৩২০ মেগাওয়াট পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সভাস্থলে প্রধানমন্ত্রী বিদ্যুৎ খাতের অগ্রগতির উপর বিশেষ প্রমান্য চিত্র উপভোগ করেন।
পরে বিদ্যুৎ কেন্দ্র উদ্বোধন ও দেশে শতভাগ বিদ্যুতায়নের ঘোষনার পর পর রঙীন আতশবাজিতে বর্ণিল হয়ে ওঠে তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র ও এর পার্শ্ববর্তী এলাকার রোদ্রজ্জ্বল নীল আকাশ।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, আলট্রা সুপার ক্রিটিক্যাল প্রযুক্তি ব্যবহার করে এ ধরনের বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে বাংলাদেশ বিশ্বের ১৩ তম দেশ। এশিয়ায় সপ্তম ও দক্ষিণ এশিয়াতে বাংলাদেশ ছাড়া শুধু ভারতে এ ধরনের একটি বিদ্যুৎ কেন্দ্র রয়েছে।

উল্লেখ্য,২০১৪ সালে বাংলাদেশ নর্থওয়েস্ট পাওয়ার কোম্পানি ও চায়না ন্যাশনাল মেশিনারি ইমর্পোট অ্যান্ড এক্সর্পোট করপোরশনের (সিএমসি) মধ্যে ১৩২০ মেগাওয়াট পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মানে চুক্তি স্বাক্ষর হয়। ২০১৬ সালের ১৪ অক্টোবর পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার ধানখালীতে কয়লা ভিত্তিক এ বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মানের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ১ হাজার একর জমির উপর নির্মিত পরিবেশবান্ধব এ বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি নির্মানে ব্যয় হয়েছে ২.৪৫ বিলিয়ন ইউএস ডলার।


এই বিভাগের আরও খবর....
এক ক্লিকে বিভাগের খবর